পৃথিবী কত দিন বাচবে!

world

“আমরা হয়তো আরো অনেক দিন বাচবো, কিন্তু পৃথিবী কি ততদিন বাচবে?” এখন পরিবেশ সচেতন প্রত্যেকটি মানুষের কাছে এটি একটি ভয়ঙ্কর প্রশ্ন! আমাদের অসচেতনেতার ফলে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে, পরিবর্তন হচ্ছে জলবায়ু। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে পৃথিবীর মরু অঞ্চলের আচ্ছাদন বিলিন হয়ে বরফ গলে যাচ্ছে। এতে সমুদ্রপৃষ্টের উচ্চতা দিন দিন বেরেই চলেছে। SCAIR(Scientific Committee on Antarctic Research) জানিয়েছে বর্তমান হারে অ্যান্টার্কটিকার বরফ গলতে থাকলে ২১০০ সালের নাগাদ সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা পাঁচ ফুট বেরে যাবে। এতে অনমান করা হয় বর্তমান পৃথিবীর উপকূলীয় অঞ্চলে বসবাস করা প্রায় ৭০ কোটি মানুষ বিপর্যয়ের সম্মুখীন হবে। তখন খাদ্য উৎপাদনও উল্লেখযোগ্য হারে হ্রাস পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। জাতিসংঘের বিজ্ঞানীদের একটি গবেষক প্যানেল পৃথিবীর ভবিষ্যৎ নিয়ে রেড অ্যালারট জারি করেছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সমুদ্রের বরফ গলে পৃষ্টের উচ্চতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে যে শুধু সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতাই বৃদ্ধি পাচ্ছে এমন নয়। জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য পরিবেশের নানা উপাদান ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সামুদ্রিক ঝড়-জলোচ্ছ্বাস বেড়ে যাচ্ছে, অতিমাত্রায় ভূমিকম্প হচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে আমাজানের মতো বড় বড় বনাঞ্চল। পাল্টে যাচ্ছে নদনদীর গতিপথ। আবাসস্থল পরিবর্তন করছে বিভিন্ন প্রজাতির জীবজন্তু। কিন্তু প্রাকৃতিক পরিবেশের বিপর্যয় কিংবা জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য দ্বায়ী কারা?

উন্নয়নশীল দেশগুলো এর জন্য দ্বায়ী করেন শিল্পোন্নত দেশগুলোকে। কিন্তু বাস্তবতা হলো জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য কম বেশি আমরা সকলেই দ্বায়ী। অপরিকল্পিত নগরায়ন, অধিক হারে গাছ-পালা উজাড় করে দেয়া, কিংবা শিল্পোন্নয়নের ফলে অতিরিক্ত কার্বন নিঃসরণ। কোন কাজটি দ্বায়ী নয় জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য। আজকের পরিবেশ বিপর্যয়ের জন্য উন্নত, উন্নয়নশীল, শিল্পোন্নত কিংবা দারিদ্র দেশ সকলেই দ্বায়ী। কিন্তু পৃথিবীর এই ক্লান্তিলগ্নে আমাদের বিশ্বনেতারা একে অপরের উপর দোষ ছাপাতে ব্যাস্ত। তবে আশার বানী হলো, সর্বশেষ জলবায়ু সম্মেলনে বিশ্বনেতারা জলবায়ু পরিবর্তনেরা নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় একটি চুক্তিতে উপনীত হন। যদিও এটি বাস্তবায়নের তেমন কোন অগ্রগতি নেই বললেই চলে। তাই আইপিসিসির প্রধান ড. জ্যাঁ পিয়ারে গাত্তুসো বলেছেন “সব দিক হতে ঝুঁকির কারণে ব্লু প্ল্যানেট এখন মহা সংকটে”।

বিশ্ব জল্ববায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি থেকে কোন দেশই মুক্ত নয়। বিশ্বব্যাংক প্রকাশিত সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে ১২টি দেশের তালিকা প্রকাশ করেছে, এর মধ্যে বাংলাদেশ ১০ম। বর্তমান জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা সংক্রান্ত কাজে বিশ্বের প্রতিটি দেশ এবং প্রতিটি মানুষকে হাতে হাত রেখে কাজ করতে হবে। না হলে এই পৃথিবীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। তাই এই পৃথিবীকে আমাদেরই বসবাস উপযোগী করে তুলতে হবে। না হলে অচিরেই বড়ো কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ- দুর্বিপাকে পৃথিবী ধ্বংশ হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.