মানবিক আর বসবাসযোগ্য একটি পৃথিবী চাই

humanity

“তুমি যদি দৃশ্যমান মানুষকেই ভালবাসতে না পার, তবে অদৃশ্যমান ঈশ্বরকে কি করে ভালবাসবে?” আর্ত মানবতার সেবাই নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া মাদার তেরেসার মহান উক্তিটি বিশ্বের প্রতিটি মানুষকে মানুষের প্রতি নিজের মানবিক দ্বায়িত্বের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। পৃথিবীতে কোন মানুষ স্বয়ং সম্পূর্ণ নয়, বেচে থাকতে হলে অন্যের উপর নির্ভর করতেই হবে। তাই আমরা সকলেই একে অপরের সাথে মিলেমিশেই বসবাস করি এই পৃথিবীতে।

মানুষ সামাজিক জীব, তাই মানুষকে সমাজবদ্ধ হয়েই বসবাস করতে হয়। কিন্তু সমাজের সকল মানুষ সমান সুযোগ-সুবিধা নিয়ে সমাজে বসবাস করে না। কারণ আমাদের সমাজব্যবস্থায় সবার সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক অবস্থা একরকম নয়। আমাদের সমাজে যেমন আছে উচ্চবিত্ত যাদের জীবন মান খুবই উচ্চবিলাসী, আবার তেমনই আছে নিম্নবিত্ত যাদের জীবনমান খুবই নিম্নমানের। ঐসব নিম্নবিত্ত মানুষদের জীবনমান এতই নিম্নমানের যে, তাদের অনেকের দু-বেলা দু-মুঠো খাবার যোগার করতেই হিমসিম খেতে হয়। সমাজের এই বৈষম্যটাকে সমাজবিজ্ঞানীরা সামাজিক বৈষম্য হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

African Poor children.
আফ্রিকান দরিদ্র শিশু।

এই সামাজিক বৈষম্যটা যে শুধুমাত্র বাংলাদেশে তা কিন্তু নয়, সারা বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশেই এই বৈষম্য বিরাজমান। তবে আশার কথা হলো সমাজের এই বৈষম্য দূর করার জন্য প্রায় প্রতিটি দেশের প্রতিটি সমাজে কাজ করে যাচ্ছে কিছু মহামানব। যাদেরকে বলা হয়ে থাকে স্বেচ্ছাসেবী। আমরা যদি আমাদের সমাজে লক্ষ করি আমরা দেখতে পাবো কিছু তরুণ-তরুণী কোন প্রকার স্বার্থ ছাড়া নানা প্রকার সামাজিক কাজ করে চলেছে। অনেকে আবার সংগঠিত ভাবে কাজ করার জন্য নানা প্রকার “Non frofit Organization” গড়ে তোলছে। অনেক সংগঠনতো আবার আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে কাজ করে চলেছে। যারা সমাজের সকল প্রকার বৈষম্য দূর করার জন্য স্বেচ্ছায় কাজ করে যাচ্ছে প্রতিটি সমাজে। এবং এদের অধিকাংশই হলো তরুণ-তরুণী। এসকল স্বেচ্ছাসেবীদের একমাত্র উদ্দেশ্য হলো একটি মানবিক পৃথিবী গড়ে তোলা।

তারা এই পৃথিবী থেকে সকল প্রকার বৈষম্য দূর করে এক মানবিক পৃথিবী গড়ার স্বপ্ন নিয়ে দূর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে। তারা যে শুধুমাত্র সামাজিক বিষয় নিয়ে কাজ করছে তা কিন্তু নয়! তারা কাজ করছে পরিবেশ নিয়েও। প্রাকৃতিক নানা উপাদানকে ধ্বংস করে পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে ধ্বংসের দিকে এগিয়ে চলা পৃথিবীকে বাঁচানোর জন্যও তারা নানা ভাবে কাজ করে চলেছে। তাদের উদ্দ্যেশ্য এবং চাওয়া একটাই আগামীর পৃথিবী হবে “মানবিক আর বসবাসযোগ্য একটি পৃথিবী”।

আসুন আমরা সকলে তাদের হাতে হাত মেলাই, একসাথে সুর মেলাই “মানবিক আর বসবাসযোগ্য একটি পৃথিবী” চাই।

1 thought on “মানবিক আর বসবাসযোগ্য একটি পৃথিবী চাই”

Leave a Reply

Your email address will not be published.