স্বপ্ন সীমাহীন


আমি হবো সবার চেয়ে আলাদা। আমার জীবন হবে সবার চেয়ে সুন্দর। আমার লেখা-পড়া কর্মজীবন হবে গোছানো আর স্বপ্নময়। এভাবেই ইচ্ছের পাখিরা স্বপ্নের আকাশে ডানা মেলে উড়তে থাকে। দুচোখ জুড়ে রঙিন স্বপ্নরা খেলা করতে থাকে। আমাদের সবার জীবনের শুরুটা তো এমন করেই হয়। কিন্তু যখন মানুষ স্বপ্নগুলো বুকে ধারণ করে এর পেছনে ছুটতে শুরু করে। তখন স্বপ্নের আকাশে ডানা মেলে ইচ্ছের পাখিরা আর স্বাচ্ছন্দ্যে উড়তে পারে না। স্বপ্নগুলোকে ছোঁতে গেলেই তা দূরে সরে যায়। তখন অনেকের জীবনে স্বপ্ন হয়ে উঠে দুঃস্বপ্ন কিংবা নেমে আসে রাজ্যের হতাশা।

এখান থেকেই কারো কারো জীবনের রঙিন ডানা মেলা স্বপ্নগুলো মরতে থাকে। কিংবা সময়ের সাথে সাথে ক্লান্তি আর বিষণ্ণতায় ভরে উঠেতে থাকে তাদের মন। তাদের বুকে কান পাতলে শোনা যায় স্বপ্ন ভঙ্গের বেদনা। তাদের কাছে এই পৃথিবীকে মনে হয় নরকের মতো। সমাজ-সংসারকে মনে হয় বেদনার লীলাভূমি। তখন অনেক তরুণ ধৈর্যহারা হয়ে নিজেকে পরাজিত সৈনিক ভেবে পথ হারিয়ে চলে যায় বিপথে। এভাবেই কি থেমে যায় জীবনের মূল স্রোত।

না! সবার জীবনে এমন হয় না। কেউ কেউ আবার “সাফল্যের পথ বড়ই কণ্টকাকীর্ণ” এই মন্ত্রে উজ্জীবিত হয়ে নতুন করে পথ চলতে শুরু করে। তারা নিজেদের অতীত ভুলগুলো শুধরে নিয়ে স্বপ্নের পথে হাঁটতে থাকে। পরিশ্রম আর ধৈর্যের সাথে সাফল্যের পথে এগিয়ে চলে। তখনই স্বপ্নের পথে সাফল্য নামের আলাদিনের চেরাগটির দেখা পায়। তাদের জীবন হয়ে উঠে আনন্দ আর স্বপ্নময়। কিন্তু ধৈর্য ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাওয়া সবাই কি সাফল্যের দেখা পায়?

না! নিখুত পরিশ্রম করেও অনেকেই সাফল্য পায় না। অনেকেই কঠোর পরিশ্রম করার পরও কোন না কোন ফাক দিয়ে সাফল্য নামের আলাদিনের চেরাগটি হাত থেকে ফসকে যাবেই। এমন করে অনেকেরই বুকের ভিতর লালন করা স্বপ্ন বকের ভিতরেই মরে যায়। কিন্তু তাই বলে কি তারা স্বপ্ন দেখা থামিয়ে দেয়?

না! তারা কখনই স্বপ্ন দেখা থামায় না। কারণ স্বপ্নই যে মানুষকে বাচিয়ে রাখে। স্বপ্ন মানুষের জীবনকে সুন্দর করতে উৎসাহ দেয়। একটি স্বপ্ন ভেঙ্গে গেলে আরেকটি স্বপ্নের সেতুবন্ধন সে তৈরি করে। কারণ মানুষের জীবন মানুষের স্বপ্নের মতই বড়। মানুষ একের পর এক স্বপ্ন বুনতে থাকে, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সে স্বপ্নের সমাপ্তি ঘটে না। স্বপ্নের কোনো সীমানা নেই, স্বপ্ন অনন্ত, স্বপ্ন সীমাহীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.