২০২০ সালের মধ্যেই রাজধানীর গণপরিবহনগুলো পুরোপুরিভাবে শৃঙ্খলায় আসবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন।

বুধবার গণপরিবহনের শৃঙ্খলা ফেরানো সংক্রান্ত কমিটির সভা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

ডিএসসিসি মেয়র বলেন, আজকের সভায় আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি রাজধানীর গণপরিবহনগুলোকে ৬টি কোম্পানিতে রুপান্তরিত করব। আর এর রুট হবে ২২টি। তবে চক্রাকার বাস সার্ভিস রুট ২২ রুটের আওতামুক্ত থাকবে। আর এ উদ্যোগ পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে সময় লাগবে ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। একবারে নয়, ধাপে ধাপে এসব উদ্যোগ বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন করা হবে। আর পুরান ঢাকায় একটি চক্রাকার বাস সার্ভিস রুট করা হবে।

তিনি আরও বলেন, চলতি মাসেই মতিঝিল চক্রাকার বাস সার্ভিস, মে মাসে উত্তরা চক্রাকার বাস সার্ভিস চালু হবে। আর পুরান ঢাকার চক্রাকার বাস সার্ভিস চালুর ব্যাপারে পরবর্তী সভায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে সাঈদ খোকন বলেন, গণপরিবহনের শৃঙ্খলা ফেরানোর উদ্যোগ অনেক বিশাল। এই মহাপরিকল্পনায় অনেক বিষয় রয়েছে; আমরা ধাপে ধাপে সেসব বাস্তবায়ন করব।

রমজান ও বর্ষার মৌসুমে যানজট এবং জলাবদ্ধতার বিষয়ে বলেন, আসন্ন রমজান ও বর্ষার মৌসুমে যানজট এবং জলাবদ্ধতা নিরসনে সেবা সংস্থাগুলোর সঙ্গে আমরা সমন্বিতভাবে কাজ করব। আপনারা দেখছেন নগরীর ফুটপাত দখলমুক্ত হচ্ছে, এ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

সমন্বয় সভায় প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনা হচ্ছে, গণপরিবহনের শৃঙ্খলা ফেরানোর কাজ দ্রুততম সময়ে শেষ করা এবং এ কার্যক্রম জনবাদ্ধব করতে হবে। এ জন্য এসব পরিবহনের টিকেট র‌্যাপিড পাসে এবং মোবাইলের মাধ্যমে করার চিন্তা করা যেতে পারে। এতে করে জনগণ এটা ব্যবহারের উৎসাহিত হবে।

ঢাকা যানবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) নির্বাহী পরিচালক খন্দকার রকিবুর রহমান বলেন, র‌্যাপিড পাসকে জনপ্রিয় করতে হবে। এজন্য আপাতত এই সময়ে অন্য কিছু চিন্তা না করা ভাল। নইলে র‌্যাপিড পাস জনপ্রিয় করা সম্ভব হবে না।

ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মীর রেজাউল আলম বলেন, ঢাকা শহরের যত্রতত্র অবৈধ পার্কিং করা হচ্ছে। এতে করে নগরীতে তীব্র যানজট হচ্ছে। সিটি কর্পোরেশন অন স্ট্রিট পার্কিং দেয়ার চিন্তা করছে, এটা পুলিশ নিতে আগ্রহী। এ ব্যাপারে ডিএসসিসি মেয়রের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

ডিএসসিসি মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকনের সভাপতিত্বে গণপরিবহনের শৃঙ্খলা ফেরানো সংক্রান্ত এই কমিটির সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব এস. এম. গোলাম ফারুক, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, বিআরটিসির চেয়ারম্যান ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, বিআরটিএ চেয়ারম্যান মো. মশিয়ার রহমান প্রমুখ।