ভারতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক নির্বাচন শুরু হয়েছে। দেশটিতে ছয় সপ্তাহের সাতদফার দীর্ঘ নির্বাচনে প্রথমদিনে ২০টির বেশি অঙ্গরাজ্যের মানুষ ভোট দিচ্ছেন।

১৩০ কোটি মানুষের দেশটিতে এবারের নির্বাচনে স্থানীয় বিভিন্ন বিষয় প্রাধান্য পাচ্ছে। এছাড়া এ নির্বাচনকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জন্য গণভোট হিসেবে দেখা হচ্ছে। জনমত জরিপে তিনি এগিয়ে থাকলেও তাকে কঠোর চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে।-খবর গার্ডিয়ান অনলাইনের

পাঁচ বছর আগে এই গোড়া হিন্দুত্ববাদী নেতা গত এক দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে সরকার গঠন করেছিলেন।

এখন ৯০টির বেশি আসনে ভোট হচ্ছে। ভারতীয় পার্লামেন্টের নিম্মকক্ষের মোট আসনের যা ছয় শতাংশ। আগামী ২৩ মে এ নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হবে। যাতে ৬৮ বছর বয়সী মোদি দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার প্রত্যাশা করছেন।

নির্বাচনের ব্যাপকতার জন্য সাতদফায় এ নির্বাচন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন। ঘড়ির কাঁটা সকাল ৭টা ছুঁতেই বেজে ওঠে ভোটের দামামা।

ভারত মহাসাগরের আন্দামান নিকোবর থেকে উত্তরপ্রদেশ; নাগাল্যান্ড থেকে পশ্চিমবঙ্গ- ৫৪৩ আসনের ‘দেশচালক’ নির্বাচনে আজ সারা দিনই ১৮ রাজ্য ও ২টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৯০টি আসনে ভোটগ্রহণ হবে। গণতন্ত্রের সবচেয়ে বড় পরীক্ষায় বসেছে ভারত।

প্রথম ধাপের নির্বাচনে অন্ধ্রপ্রদেশ, অরুনাচল, গোয়া, গুজরাট, হরিয়ানা, হিমাচল, কেরালা, মেঘালয়, মিজোরাম, নাগাল্যান্ড, পাঞ্জাব, তেলেঙ্গানা, তামিলনাড়ু, আন্দামান ও নিকোবর, দাদরা ও নাগর হাভেলি, দামান ও দিউ, লাক্ষাদ্বীপ, নয়াদিল্লি, পদুচেরি, চন্ডিগড় ও উত্তরাখণ্ডের ভোটাররা একযোগে ভোট দিচ্ছেন।

লোকসভার সঙ্গে সঙ্গে অন্ধ্রপ্রদেশ, সিকিম, অরুনাচল ও ওড়িশা- এ চার রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন হচ্ছে। জম্মু-কাশ্মীরে বিধানসভা নির্বাচনের কথা থাকলেও এখনই তা হচ্ছে না।

মার্চের প্রথম সপ্তাহে লোকসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

তফসিলের সঙ্গে সঙ্গেই কার্যকর হয় নির্বাচনী আচরণবিধি। কেন্দ্র এবং রাজ্য সরকারগুলো নতুন কোনো প্রকল্প ঘোষণা করতে পারবে না বলে জারি করা হয় নির্দেশনা।

প্রথম ধাপ উতরে গেলেই চলতি মাসের ১৮, ২৩ ও ২৯ এপ্রিল যথাক্রমে দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ ধাপের ভোট হবে। এরপর মে মাসের ৭, ১২ এবং ১৯ তারিখে হবে বাকি তিন ধাপের ভোট।

সাত ধাপের এ ভোটগ্রহণ শেষ হবে ১৯ মে। ২৩ মে ফলাফল ঘোষণা করা হবে। দ্বিতীয় ধাপে ১৩টি রাজ্যের ৯৭টি আসনে; তৃতীয় ধাপে ১৪টি রাজ্যের ১১৫টি আসনে; চতুর্থ ধাপে ৭১টি আসনে; পঞ্চম ধাপে ৭টি রাজ্যের ৫১টি, ষষ্ঠ ধাপে ৭টি রাজ্যের ৫৯টি, সপ্তম ধাপে ৮টি রাজ্যের ৫৯টি আসনে ভোটগ্রহণ হবে।

পরিসংখ্যান বলছে, এবারের লোকসভা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন দেশের প্রায় ৯০ কোটি ভোটার। এর অর্ধেকেরও বেশি নারী। গতবারের চেয়ে ভোটার সংখ্যাও বেড়েছে প্রায় ৯ শতাংশ। যোগ হয়েছে ১৩ কোটি নতুন ভোটার।

এদের মধ্যে তরুণ ভোটার প্রায় দেড় কোটি। তবে ২০১৪ সালে নতুন ভোটারের সংখ্যা অনেক বেশি ছিল।

এবার ভোটারদের দুই-তৃতীয়াংশের বয়স ৩৫ বা তার থেকে কম। ভোটে অংশ নিচ্ছে ১৮৪১টি রাজনৈতিক দল। প্রার্থীর সংখ্যা প্রায় আট হাজার।

ভোট নেয়া হচ্ছে দশ লাখেরও বেশি কেন্দ্রে। শুধু ভারতে নয় গোটা বিশ্বেই এটি রেকর্ড। ১১ লাখ ইভিএমে নিজেদের মত জানাচ্ছেন ভোটাররা। প্রত্যেক ইভিএমের সঙ্গে রয়েছে ভিভিপ্যাট।

প্রথমবার ভোটার তথা ১৮-১৯ বছর বয়স এমন ভোটার সংখ্যা দেড় কোটির কাছাকাছি। এ ছাড়া রয়েছে ৩৮ হাজারেরও বেশি রূপান্তরকামী ভোটার। বিভিন্ন সমীক্ষা থেকে জানা গেছে, এবার ভোটের খরচ প্রায় ৫০০ বিলিয়ন। সে হিসাবে এটাই ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে ব্যয়বহুল নির্বাচন।